মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২, ০৫:২৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম
আজকের পত্রিকা -০৪-০৬-২০২২ সৈয়দপুরে মাদক ব্যবসায়ীদের টার্গেট এখন ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ কমিটি, উদ্দেশ্য পদ পদবী বাগিয়ে নির্বিঘ্নে মাদক ব্যবসা  সৈয়দপুর বিমানবন্দরে ভিআইপি লাউঞ্জে নিরাপত্তা কর্মীর উপর যুবলীগ নেতার ক্ষমতার অপব্যবহার সৈয়দপুরের কল্যান ট্রাষ্টের নামে লন্ডাবাজার অবৈধ রেল মার্কেটের কোটি কোটি টাকা লুটপাঠ সৈয়দপুর রেল কারখানার জায়গায় অবৈধভাবে স্থাপিত সরকারী শিশু কল্যাণ ট্রাষ্ট স্কুল দুর্নীতিবাজ রেল কর্মকর্তার যোগসাজসে ভূমিদস্যুরা হাতিয়ে নিয়েছে রেলের কোটি টাকার সম্পদ সৈয়দপুর পৌর আ’লীগের ইফতার মাহফিলে দাওয়াত পাননি ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোকছেদুল মোমিন সৈয়দপুরে আসামীদের সাথে নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করলেন মোকছেদুল মোমিন সৈয়দপুর পৌরসভা কর্তৃক সরকারী সম্পত্তি আত্মসাতের অপরাধে রেল কর্তৃপক্ষের মামলা সৈয়দপুর বিমানবন্দর রোডে ৫৪৪নং রেল কোয়ার্টার ভেঙ্গে কোটি টাকার মার্কেট নির্মাণ, নির্বিকার রেল প্রশাসন

সৈয়দপুর রেল কারখানার জায়গায় অবৈধভাবে স্থাপিত সরকারী শিশু কল্যাণ ট্রাষ্ট স্কুল

মোতালেব হোসেন
  • সময় রবিবার, ৮ মে, ২০২২
  • ১০৭ বার পঠিত

রেলের শহর দূর্নীতি-২য় পর্বঃ সৈয়দপুর রেল কারখানার ১২নং গেটের সামনে রেল লাইনের পাশে রেলওয়ের অপারেশনাল কেপিআই এলাকার উভয় পাশে রেল লাইন যা মূল গেট এবং পিছনের ১২নং গেট রেললাইন উভয় লাইনের মধ্যখানে ১৫ই জানুয়ারী ২০১৫ সালে রেল কারখানার মিলরাইট শপের এক মিস্ত্রি মোকছেদুল মোমিন টিকিট নং-৬০১৬ চাকুরীরত অবস্থায় কারখানার ডিএস নূর মোহাম্মদ এর আনুকূল্যে উক্ত জায়গাটি দখল করে তার নিজ বাবা শামশুল হক মেমোরিয়াল স্কুল নামে একটি স্কুল প্রতিষ্ঠা করেন। চাকরীবিধি লঙ্ঘনকারী উক্ত শ্রমিক নেতা মোকছেদুল মোমিন রেলওয়ের একজন সামান্য মিস্ত্রি হয়ে ঢাকঢোল পিটিয়ে তৎকালীন সময়ের সরকারী দলের নেতাদের ডেকে নিয়ে এসে স্কুল উদ্ধোধন করেন।

স্কুলটি চালু হওয়ার পর তিনি সেই স্কুলের প্রধান শিক্ষক হিসাবে তার আপন ভাইকে নিয়োগ দেন। রেলের উভয় পাশে ঝুঁকিপূর্ণ জমিতে রেল কর্তৃপক্ষের যোগসাজোসে রেলে অপারেশনাল কেপিআই এলাকায় কিভাবে তিনি স্কুল করলেন সেটি বিরাট রহস্য। পরবর্তীতে ২০১৭ সালে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উদ্যোগে সরকারীভাবে সমাজের অবহেলিত ও ঝরে পড়া শিশুদের জন্য প্রতিটি উপজেলায় শিশু কল্যান ট্রাষ্টের আওতায় একটি করে স্কুল প্রতিষ্ঠা করা হয়। সৈয়দপুরেও তার ব্যাতিক্রম হয়নি কিন্তু স্কুলের স্থান নির্বাচনে হয়েছে ব্যপক অনিয়ম ও দূর্নীতি। সেই শ্রমিক নেতা সরকার দলীয় উপজেলা চেয়ারম্যান হওয়ার সুবাদে অবৈধ প্রভাব বিস্তার করে রেলের সেই অবৈধ দখলকৃত কেপিআই জমিতে শিশু কল্যান ট্রাষ্ট স্কুলটি পরিচালনার জন্য ভাড়া দেন। মজার বিষয় হলো তার বাবার নামে প্রতিষ্ঠিত স্কুলের প্রধান শিক্ষক তার নিজের ভাইকেই বানিয়েছেন শিশু কল্যান ট্রাষ্টের প্রধান শিক্ষক।

এ ব্যাপারে সৈয়দপুর উপজেলার সহকারী শিক্ষা অফিসার নূসরাত জাহানের মোবাইল ফোনে স্কুলের ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন আমরা জায়গাটি শামশুল হক মেমোরিয়াল স্কুলের কাছে ভাড়া নিয়েছি। রেলের জমি কিভাবে আপনারা অন্য একটি প্রতিষ্ঠানের কাছে ভাড়া নিলেন জানতে চাইলে তনি কোন সদুত্তর দিতে পারেন নাই। আবার এই শিক্ষক কিভাবে দুই প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক হলেন জানতে চাইলে তিনি বলেন আমি নতুন মানুষ আমি এই ব্যাপারে সবকিছু জানিনা। এই ব্যাপারে উপজেলা শিক্ষা অফিসার শাজাহান মন্ডলের মোবাইল ফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন স্কুলটি অনেকদিন পূর্বে ঐ স্থানে ভাড়া নেওয়া হয়েছে যা আমার পূর্ববর্তী অফিসারের সময়ে করা হয়েছে এই ব্যাপারে আমার সঠিক জানা নাই। দুই রেল লাইনের মাঝ দিয়ে কিভাবে বাচ্চারা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে স্কুলে যাতায়াত করবে তা বিবেচনা না করেই উক্ত স্থানে সরকারী স্কুলটি পরিচালনা করা বিপদজনক বলে স্থানীয় জনগন মনে করেন।

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ধরনের আরও সংবাদ
 

দৈনিক দাবানল © সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২০

themesba-lates1749691102