মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২, ০৭:২১ অপরাহ্ন
শিরোনাম
আজকের পত্রিকা -০৪-০৬-২০২২ সৈয়দপুরে মাদক ব্যবসায়ীদের টার্গেট এখন ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ কমিটি, উদ্দেশ্য পদ পদবী বাগিয়ে নির্বিঘ্নে মাদক ব্যবসা  সৈয়দপুর বিমানবন্দরে ভিআইপি লাউঞ্জে নিরাপত্তা কর্মীর উপর যুবলীগ নেতার ক্ষমতার অপব্যবহার সৈয়দপুরের কল্যান ট্রাষ্টের নামে লন্ডাবাজার অবৈধ রেল মার্কেটের কোটি কোটি টাকা লুটপাঠ সৈয়দপুর রেল কারখানার জায়গায় অবৈধভাবে স্থাপিত সরকারী শিশু কল্যাণ ট্রাষ্ট স্কুল দুর্নীতিবাজ রেল কর্মকর্তার যোগসাজসে ভূমিদস্যুরা হাতিয়ে নিয়েছে রেলের কোটি টাকার সম্পদ সৈয়দপুর পৌর আ’লীগের ইফতার মাহফিলে দাওয়াত পাননি ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোকছেদুল মোমিন সৈয়দপুরে আসামীদের সাথে নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করলেন মোকছেদুল মোমিন সৈয়দপুর পৌরসভা কর্তৃক সরকারী সম্পত্তি আত্মসাতের অপরাধে রেল কর্তৃপক্ষের মামলা সৈয়দপুর বিমানবন্দর রোডে ৫৪৪নং রেল কোয়ার্টার ভেঙ্গে কোটি টাকার মার্কেট নির্মাণ, নির্বিকার রেল প্রশাসন

কাল রংপুর বিভাগের ১১ মডেল মসজিদের উদ্বোধন করেবন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

ফরহাদুজ্জামান ফারুক
  • সময় বুধবার, ৯ জুন, ২০২১
  • ৭৬৩ বার পঠিত

রংপুর বিভাগে ১১টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কমপ্লেক্সের ১০ জুন আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হবে।  মুজিববর্ষ উপলক্ষে আগামীকাল  বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে দশটায় ওসমানী ভার্চুয়াল স্মৃতি মিলনায়তন ও গণভবন থেকে ভার্চুয়াল আয়োজনের মাধ্যমে প্রথম ধাপে সারাদেশে ৫০টি মডেল মসজিদের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর মধ্যে রংপুর জেলার পাঁচটিসহ বিভাগের আরও ছয়টি মডেল মসজিদ রয়েছে।এদিকে মসজিদ উদ্বোধনের সবপ্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে গণপূর্ত অধিদফতর ও ইসলামিক ফাউন্ডেশন। রংপুর জেলা মডেল মসজিদ ছাড়াও সদর উপজেলা, মিঠাপুকুর, পীরগঞ্জ ও বদরগঞ্জে নির্মিত মডেল মসজিদটি রয়েছে উদ্বোধনের তালিকায়। এ ছাড়া দিনাজপুরের খানসামা ও বিরল, লালমনিরহাটের পাটগ্রাম, পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জ ও সদর উপজেলা এবং ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুর উপজেলার মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংষ্কৃতিক কমপ্লেক্সের আজ উদ্বোধন হবে।

মসজিদভিত্তিক সমাজের গুরুত্ব বিবেচনায় নিয়ে ইসলামি মূল্যবোধের প্রসার ও ইসলামি সংস্কৃতি বিকাশের উদ্দেশ্যে দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলায় একটি করে মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে বর্তমান সরকার। এতে দেশীয় সম্পদ ব্যবহার করে সম্পূর্ণ বাংলাদেশ সরকারের অর্থায়নে এসব মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র তৈরি করা হচ্ছে। এতে ৮ হাজার ৭২২ কোটি টাকা ব্যয় ধরা হয়েছে।

দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলা মিলে ৫৬০টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণ করা হচ্ছে। এর মধ্যে রংপুর বিভাগে ৬৬টি স্থাপন করা হবে। এর ভেতরে রংপুর জেলায় রয়েছে ৯টি মসজিদ। এসবের মধ্যে রংপুর নগরের কাচারী সড়কে বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ের পাশে নির্মিত জেলা মডেল মসজিদ, সদর উপজেলার পাগলাপীরে, পীরগঞ্জের লালদিঘীতে, মিঠাপুকুরের উপজেলা পরিষদ চত্বরে এবং বদরগঞ্জের উপজেলা পরিষদ চত্বরের পাশে নির্মিত মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রটি এখন উদ্বোধনের অপেক্ষায়। বিভাগের আট জেলার নির্মাণাধীন ৬৬টি মসজিদের মধ্যে আজ গাইবান্ধা, কুড়িগ্রাম ও নীলফামারী বাদ দিয়ে বাকি পাঁচ জেলায় ১১টি মসজিদের উদ্বোধন ঘোষণা করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সারাদেশে দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলা এসব মসজিদের নির্মাণকাজের দায়িত্ব গণপূর্ত অধিদফতরের। ইসলামি শিক্ষা, সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য প্রসারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগে আগ্রাধিকারভিত্তিক প্রকল্পের আওতায় রংপুরসহ দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলায় মডেল মসজিদ কমপ্লেক্স নির্মাণ করা হচ্ছে। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে ইসলামিক ফাউন্ডেশন। এটি দেশের দ্বিতীয় বৃহৎ প্রকল্প। উপজেলা পর্যায়ের মসজিদগুলো তিনতলা হলেও রংপুর জেলা শহরের মসজিদটি চারতলাবিশিষ্ট। অনুমোদিত নকশা অনুযায়ী জেলা শহরের প্রতিটি মডেল মসজিদের আয়তন প্রায় ৪০ হাজার বর্গফুট এবং উপজেলার মসজিদগুলোর আয়তন ৩০ হাজার বর্গফুট।

গণপূর্ত অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, ২০১৮ সালের ৫ এপ্রিল গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণকাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সারা দেশে ৫৬০টি মডেল মসজিদ ছাড়াও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণ করছে বর্তমান সরকার। এরই ধারাবাহিকতায় রংপুরে এসব মসজিদ নির্মাণ করা হচ্ছে। এর জন্য জমির ধরনভেদে প্রতিটি মসজিদ নির্মাণের জন্য প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হচ্ছে ১২ থেকে ১৬ কোটি টাকা। প্রতিটি জেলা ও উপজেলায় একই আদলে মডেল মসজিদ নির্মাণ করা হচ্ছে। এসব মসজিদ হবে শীতাতপনিয়ন্ত্রিত। নারী-পুরুষদের জন্য থাকবে আলাদা অজু ও নামাজের ব্যবস্থা। থাকবে গ্রন্থাগার, সম্মেলনকক্ষ ও গবেষণাকেন্দ্র। এ ছাড়া অসুস্থ ও প্রতিবন্ধীদের জন্য আলাদা সিঁড়ি থাকবে। হেফজ বিভাগ ও শিশুদের জন্য থাকবে শিক্ষাসুবিধা। পর্যটকদের ভ্রমণসুবিধাও রাখা হবে এসব মসজিদে। এ ছাড়া মরদেহ গোসল করানো, হজযাত্রী ও ইমামদের প্রশিক্ষণের সুবিধা থাকবে। মসজিদের খতিব, ইমাম, মুয়াজ্জিন, খাদেম সবাই সরকারি রাজস্ব বেতনভুক্ত হবেন। ইসলামিক ফাউন্ডেশনের তত্ত্বাবধানে এসব মসজিদ পরিচালিত হবে।

রংপুরের গণপূর্ত অধিদফতরের নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল্লাহ্ আল মামুন জানান, মুজিববর্ষ উপলক্ষে এ বছর প্রথম ধাপে ১০ জুন বৃহস্পতিবার সারা দেশে ৫০টি মডেল মসজিদ উদ্বোধন করবেন। এ তালিকায় রংপুরের জেলা শহর, সদর উপজেলা, মিঠাপুকুর, পীরগঞ্জ ও বদরগঞ্জ উপজেলার মডেল মসজিদ রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব মডেল মসজিদ উদ্বোধন করার পর নামাজের জন্য মসজিদগুলো উন্মুক্ত করা হবে। জেলা শহর ও সিটি করপোরেশন এলাকায় নির্মাণাধীন মসজিদগুলোতে একসঙ্গে ১ হাজার ২০০ মুসল্লি নামাজ আদায় করতে পারবেন। অপরপক্ষে উপজেলা এলাকার মডেল মসজিদগুলোতে একসঙ্গে ৯০০ মুসল্লি নামাজ আদায় করতে পারবেন বলেও তিনি জানান।

এদিকে মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রগুলো ইসলাম শিক্ষার কেন্দ্র হিসেবে কাজ করবে বলে মনে করছেন স্থানীয় আলেম-ওলামা। সচেতন মহল বলছেন, ধর্মীয় গোঁড়ামি, কুসংস্কার, নারীর প্রতি সহিংসতাসহ যৌতুক, মাদক, সন্ত্রাস রোধে মডেল মসজিদ থেকে কার্যকর উদ্যোগ নেওয়া সম্ভব হবে। রংপুর নগরীর কোর্ট জামে মসজিদের ইমাম মুফতি মুহাম্মাদ জাহিদ বিন মাহবুব বলেন, সরকারের এই প্রকল্প বিশ্বে প্রথম ও নজিরবিহীন ঘটনা। একসঙ্গে এতগুলো মসজিদ পৃথিবীর ইতিহাসে কোনো সরকার নির্মাণ করেনি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এই উদ্যোগ ও অবদান মুসলিমবিশ্ব ভুলবে না। এসব মডেল মসজিদ শুধু নামাজ আদায় নয়, ইসলামি গবেষণা, সংস্কৃতি ও জ্ঞানচর্চার কেন্দ্রবিন্দু হিসেবে ব্যবহৃত হবে। তিনি বলেন, মুসলিমদের সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের বিকাশের পাশাপাশি ধর্মীয় প্রচার-প্রচারণা আরও বাড়বে। মডেল মসজিদকে কেন্দ্র করে পর্যটনশিল্পের বিকাশ ঘটবে। শুধু তা-ই নয়, আলেম-ওলামাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ প্ল্যাটফর্ম হিসেবে বিবেচিত হবে সরকারের এই প্রকল্প।

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের রংপুর বিভাগীয় পরিচালক (অতিরিক্ত দায়িত্ব) কৃষিবিদ নূরুল ইসলাম জানান, ধর্মপ্রাণ মানুষ পবিত্র কোরআন ও হাদিসের জ্ঞান অর্জনে লাইব্রেরি থেকে সুবিধা পাবে। গবেষকদের জন্য গবেষণার সুযোগ সৃষ্টি হবে। সারা দেশে হাজার হাজার মুসল্লি দীনি দাওয়াতি কার্যক্রম পরিচালনার সুযোগ পাবেন। অনেকেই কোরআন শরিফ হিফজ করার সুযোগ পাবেন। এ ছাড়া সরকারের এই প্রকল্প সঠিকভাবে বাস্তবায়িত হলে শিশুদের প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা অর্জনের ব্যবস্থা তৈরি হবে। তিনি আরো বলেন, মুজিব বর্ষে বিভাগে ৬৬টি মসজিদের মধ্যে ১১টির উদ্বোধন করা হবে। এর মধ্যে রংপুর জেলায় ৫টি, দিনাজপুরে ২টি, পঞ্চগড়ে ২টি, ঠাকুরগাঁওয়ে ১টি, লালমনিরহাটে ১ মসজিদ রয়েছে। জেলা পর্যায়ের মসজিদগুলো চারতলা এবং উপজেলা পর্যায়ে তিনতলাবিশিষ্ট। এসব মসজিদের পরিবেশ বেশ মনোরম হবে। মসজিদের ভেতরে পুরুষের পাশাপাশি নারীরা নামাজ আদায় করতে পারবেন। প্রতিটি মসজিদে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের একটি আলাদা অফিস থাকবে। অতিথি ও বিদেশি পর্যটকদের ভ্রমণসুবিধাও রাখা হবে মসজিদে।

উদ্বোধনের ব্যাপারে রংপুরের জেলা প্রশাসক আসিব আহসান বলেন, জেলায় মোট নয়টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণ করা হচ্ছে। এর মধ্যে প্রথম ধাপে ১০ জুন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রংপুরের পাঁচটি মসজিদের উদ্বোধন করবেন। বাকি চারটিও খুব দ্রুত উদ্বোধন করা হবে।

প্রসঙ্গত, ২০১৪ সালের নির্বাচনী ইশতেহারে প্রতিটি জেলা ও উপজেলায় একটি করে উন্নত মসজিদ নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেই প্রতিশ্রুতি পূরণে সরকার একসঙ্গে ৫৬০টি মসজিদ নির্মাণ করছে। শুরুতে প্রকল্পটি সৌদি সরকারের অর্থায়নে হওয়ার কথা ছিল। পরে সৌদি আরব এ বিষয়ে নীরব থাকায় ধর্ম মন্ত্রণালয় নিজস্ব অর্থায়নে এ প্রকল্পের কাজ শুরু করে। ইতোমধ্যে ৫৬০টি মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের মধ্যে ৪০০টির কাজ শুরু হয়েছে। বিশ্বে এই প্রথম কোনো সরকার একসঙ্গে ৫৬০টি মসজিদ নির্মাণ করছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ধরনের আরও সংবাদ
 

দৈনিক দাবানল © সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২০

themesba-lates1749691102