মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২, ০৭:১১ অপরাহ্ন
শিরোনাম
আজকের পত্রিকা -০৪-০৬-২০২২ সৈয়দপুরে মাদক ব্যবসায়ীদের টার্গেট এখন ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ কমিটি, উদ্দেশ্য পদ পদবী বাগিয়ে নির্বিঘ্নে মাদক ব্যবসা  সৈয়দপুর বিমানবন্দরে ভিআইপি লাউঞ্জে নিরাপত্তা কর্মীর উপর যুবলীগ নেতার ক্ষমতার অপব্যবহার সৈয়দপুরের কল্যান ট্রাষ্টের নামে লন্ডাবাজার অবৈধ রেল মার্কেটের কোটি কোটি টাকা লুটপাঠ সৈয়দপুর রেল কারখানার জায়গায় অবৈধভাবে স্থাপিত সরকারী শিশু কল্যাণ ট্রাষ্ট স্কুল দুর্নীতিবাজ রেল কর্মকর্তার যোগসাজসে ভূমিদস্যুরা হাতিয়ে নিয়েছে রেলের কোটি টাকার সম্পদ সৈয়দপুর পৌর আ’লীগের ইফতার মাহফিলে দাওয়াত পাননি ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোকছেদুল মোমিন সৈয়দপুরে আসামীদের সাথে নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করলেন মোকছেদুল মোমিন সৈয়দপুর পৌরসভা কর্তৃক সরকারী সম্পত্তি আত্মসাতের অপরাধে রেল কর্তৃপক্ষের মামলা সৈয়দপুর বিমানবন্দর রোডে ৫৪৪নং রেল কোয়ার্টার ভেঙ্গে কোটি টাকার মার্কেট নির্মাণ, নির্বিকার রেল প্রশাসন

বিপাকে রংপুরের ফুটপাতের দোকানি-ভ্রাম্যমাণ ব্যবসায়ীরা

বর্ণালী জামান বর্ণা
  • সময় বৃহস্পতিবার, ৮ এপ্রিল, ২০২১
  • ৩০৪ বার পঠিত

করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে ৫ থেকে ১১ এপ্রিল পর্যন্ত সারাদেশেরমত রংপুরের চলছে লকডাউন। এরই অংশ হিসেবে খাবারের দোকান, হোটেল-রেস্তোরাঁ, কাঁচাবাজারসহ নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দোকান খোলা রেখে বাকি ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে সরকার। ফলে বিপাকে পড়েছেন রংপুরের ফুটপাতের ক্ষুদ্র দোকানিসহ ভ্রাম্যমাণ ব্যবসায়ীরা। উপার্জনের বিকল্প ব্যবস্থা না থাকায় তাদের অনেকেই বাধ্য হয়ে দিনমজুরি করছেন। আর যারা নগরে বসবাস করছেন, তারা ভ্যানগাড়ি বা ফেরি করে পাড়া-মহল্লার গলিতে গলিতে ঘুরে অনেকটা ভয়ে ভয়ে ব্যবসা করছেন। তবে, ঠিকমতো বেচাকেনা না হওয়ায় পরিবার নিয়ে বিপাকে এসব স্বল্প আয়ের ব্যবসায়ীরা। এমন পরিস্থিতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ফুটপাতে সীমিত পরিসরে দোকান খোলার আহ্বান জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। তাদের দাবি, ফুটপাতে ব্যবসা করে স্বল্প আয়ে সপরিবারে জীবনযাপন করছেন। লকডাউনের কারণে গত বছর বড় ধরনের ক্ষতির মুখোমুখি হয়েছিলেন তারা। এবারও একই অবস্থা চলতে থাকলে ভিক্ষা করতে হবে, না হয় অনাহারে মরতে হবে। বুধবার (৭ এপ্রিল) রংপুরের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখে গেছে, সুপার মার্কেট, জামাল মার্কেট, সালেক মার্কেট জাহাহ কোম্পানীর মোড়, সিটি মার্কেটসহ অধিকাংশ ফুটপাতের দোকান ও ভ্রাম্যমাণ দোকান বন্ধ। তবে, পরিবারের তিনবেলা খাবার জোটাতে ঝুঁকি নিয়েও কেউ কেউ দোকান খুলে এদিক ওদিক ঘোরাফেরা করতে দেখা গেছ। ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, গত এক বছর ধরে তাদের ব্যবসা খারাপ যাচ্ছে। সম্প্রতি করোনার প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় আবারও বিপাকে পড়েছেন তারা। এমন অবস্থা চলতে থাকলে সামনে রমজান ও ঈদকে কেন্দ্র করে যে ব্যবসায়িক পরিকল্পনা রয়েছে, তাও ভেস্তে যাবে। তারা জানান, ফুটপাতে সারা বছর টুকটাক ব্যবসা হলেও বিভিন্ন উৎসব বা দিবসকে কেন্দ্র করে বিক্রি জমে ওঠে। তবে, দেশে করোনার সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর থেকে তাদের ব্যবসায় মন্দা চলছে। সম্প্রতি করোনাসহ বিভিন্ন কারণে ব্যবসা বন্ধ থাকায় অনেকের ব্যবসা বন্ধ হয়ে গেছে। অনেকে ঋণগ্রস্তও হয়ে পড়েছেন। জামাল মার্কেটে পাশে ফুটপাতে জামা-কাপড় বিক্রি করেন রুবেল। তিনি বলেন, গক লকডাউনসহ বিভিন্ন কারণে ৬ সপ্তাহের বেশি সময় ধরে দোকান নিয়ে বসতে পারি নাই। ব্যবসা না হওয়ায় হাতে টাকাও নেই। জমানো পুঁজি শেষ করে ঋণগ্রস্ত হয়ে পড়েছি। কিছুদিন হলো আবার ব্যবসা শুরু করেছি। দোকান না খুললে সংসার চালবো কী করে?’ স্টেশন এলাকায় ভ্যানে করে ফল বিক্রেতা ফরহাদ বলেন, ‘বাসায় চাল নেই, হাতে টাকা নেই। সকালে চা-নাস্তা খেয়ে বের হয়েছি। দুপুরে কী খাবো, তার ঠিক নেই। লকডাউনে দোকান না খুললে টাকা পাবো কোথায়? এক-দুই টাকা বিক্রি হলেও তো চাল কিনতে পারবো। তাই ঝুঁকি নিয়ে বের হয়েছি। সীমিত সময়ের জন্য সরকার লকডাউনে দোকান খোলার সুযোগ দিলে ফুটপাতের ব্যবসায়ীরা বাঁচবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ধরনের আরও সংবাদ
 

দৈনিক দাবানল © সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২০

themesba-lates1749691102