মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২, ০৬:৩৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম
আজকের পত্রিকা -০৪-০৬-২০২২ সৈয়দপুরে মাদক ব্যবসায়ীদের টার্গেট এখন ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ কমিটি, উদ্দেশ্য পদ পদবী বাগিয়ে নির্বিঘ্নে মাদক ব্যবসা  সৈয়দপুর বিমানবন্দরে ভিআইপি লাউঞ্জে নিরাপত্তা কর্মীর উপর যুবলীগ নেতার ক্ষমতার অপব্যবহার সৈয়দপুরের কল্যান ট্রাষ্টের নামে লন্ডাবাজার অবৈধ রেল মার্কেটের কোটি কোটি টাকা লুটপাঠ সৈয়দপুর রেল কারখানার জায়গায় অবৈধভাবে স্থাপিত সরকারী শিশু কল্যাণ ট্রাষ্ট স্কুল দুর্নীতিবাজ রেল কর্মকর্তার যোগসাজসে ভূমিদস্যুরা হাতিয়ে নিয়েছে রেলের কোটি টাকার সম্পদ সৈয়দপুর পৌর আ’লীগের ইফতার মাহফিলে দাওয়াত পাননি ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোকছেদুল মোমিন সৈয়দপুরে আসামীদের সাথে নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করলেন মোকছেদুল মোমিন সৈয়দপুর পৌরসভা কর্তৃক সরকারী সম্পত্তি আত্মসাতের অপরাধে রেল কর্তৃপক্ষের মামলা সৈয়দপুর বিমানবন্দর রোডে ৫৪৪নং রেল কোয়ার্টার ভেঙ্গে কোটি টাকার মার্কেট নির্মাণ, নির্বিকার রেল প্রশাসন

রংপুর যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর-স্মাক্ষর নিতেই দিতে হবে উপরি

জি.এম জয়
  • সময় শুক্রবার, ১ জানুয়ারী, ২০২১
  • ৫০৩ বার পঠিত

স্মাক্ষর নিতেই দিতে হবে তিন হাজার টাকা। নাহলে ঘুরতে হবে মাসের পর মাস। বিভিন্ন কর্মকাণ্ড পরিচালনার সুযোগে ঘুষ-দুর্নীতির অভিযোগ পাওয়া গেছে রংপুর জেলা যুব উন্নয়র অধিদপ্তরের বিরুদ্ধে। অভিযোগ অস্বীকার করে কর্মকর্তা-কর্মচারিরা এ বিষয়ে মুখ খুলতে নারাজ। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নজদারি প্রত্যাশা করেছেন ভুক্তভোগিরা। অভিযোগে জানা যায়, বিভিন্ন সেচ্চাসেবী সংগঠনের রেজিষ্ট্রেশনের জন্য সরকারি নির্ধারিত ট্রেজারি চালান ফি পাঁচ’শ টাকা। কিন্তু দাবি করা হয় তিন হাজার টাকার। বিভিন্ন উপজেলার যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের অনিয়মের সিঁড়ি বেয়ে রংপুর জেলা অফিসে আসা ফাইল এক টেবিল থেকে অন্য টেবিলে সরাতে ক্লার্ক মোতালেবসহ অফিস সংশ্লিষ্টদের ধাপে ধাপে দিতে হয় দুই হাজার টাকা এবং উপ-পরিচালক দিলগীর আলমকে দিতে হয় এক হাজার টাকা। এ প্রসঙ্গে রংপুর জেলা যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক দিলগীর আলম দাবানলকে বলেন, এ বিষয়ে আমি কিছু বলতে পারবো না! জেলা অফিসে উপজেলা থেকে যে ফাইল পাঠানো হয় তা রেজিষ্ট্রেশন করা হয়। তিনি জানান, ৬ ডিসেম্বর রংপুর জেলা যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরে একটি চিঠি আসছে, যাতে সেবা প্রাপ্তি ফি বাবদ পঁচিশ’শ টাকা নেয়ার কথা বলা আছে। তবে সে বিষয়ে এখনো কোন সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা দেয়া হয়নি। অভিযোগ রয়েছে, নির্দেশনা ছাড়াই সেবা প্রাপ্তির ফি বাবদ পঁচিশ’শ টাকাও ইতোমধ্যে নেয়া হচ্ছে সেবা প্রার্থীদের কাছে থেকে। এছাড়াও বিভিন্ন প্রশিক্ষণের নির্ধারিত ফি ছাড়াও বাড়তি অর্থ হাতিয়ে নেয়া হচ্ছে এই সরকারি অধিদপ্তরটিতে। রংপুর জেলা যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর জানায়, প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে রংপুর জেলায় রেজিষ্ট্রেশনভুক্ত সংগঠনের সংখ্যা মাত্র ৮২টি। অভিযোগ রয়েছে, অফিসগুলো রেজিষ্ট্রেশনে বাড়তি টাকা দাবি করায় অনেকেই স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের রেজিষ্ট্রেশন নিতে তাদের প্যারা পোহাতে চাননা। কারণ যুব উন্নয়ন নীতিমালা অনুযায়ী রেজিষ্ট্রেশনভুক্ত সংগঠনগুলো কোন অর্থনৈতিক লেনদেন কর্মকান্ড করতে পারবে না। নাম প্রকাশ্যে অনিশ্চুক এক ভুক্তভোগি জানান, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন করতে গিয়ে যদি ঘুষ দিয়ে রেজিষ্ট্রেশন নিতে হয়, তাহলে দরকারই নেই। আগে নিয়ম ছিল সমবায়ের তালিকাভুক্ত হলেই কেবল যুব উন্নয়ন থেকে রেজিষ্ট্রেশন দেয়া হতো। সেই নিয়ম এখন আর মানা হয় না। এ বিষয়ে রংপুর জেলা প্রশাসক আসিব আহসান দাবানলকে বলেন, সরকারি নির্ধারিত ফি’র বাইরে বাড়তি কোন অর্থ তারা নিতে পারবে না। সরকারি ফি গ্রহণের জন্য অবশ্যই রিসিভ কপি দিতে হবে। বিষয়টি যেহেতু জানলাম, এবিষয়ে যুব উন্নয়ন অফিসারদের সাথে কথা বলা হবে। দেশের সবচেয়ে বড় সরকারি প্রশিক্ষণ প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর তার পূর্ণ শক্তি নিয়ে কাজ করতে পারছে না নানা অনিয়ম-দুর্নীতির জাঁতাকলে পিষ্ঠ হয়ে। এ বিষয়ে রংপুর জেলা প্রশাসকসহ সংশিষ্ট কর্তৃপক্ষের নজদারি প্রত্যাশা করেছেন সচেতন মহল।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ধরনের আরও সংবাদ
 

দৈনিক দাবানল © সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২০

themesba-lates1749691102