মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২, ০৭:০১ অপরাহ্ন
শিরোনাম
আজকের পত্রিকা -০৪-০৬-২০২২ সৈয়দপুরে মাদক ব্যবসায়ীদের টার্গেট এখন ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ কমিটি, উদ্দেশ্য পদ পদবী বাগিয়ে নির্বিঘ্নে মাদক ব্যবসা  সৈয়দপুর বিমানবন্দরে ভিআইপি লাউঞ্জে নিরাপত্তা কর্মীর উপর যুবলীগ নেতার ক্ষমতার অপব্যবহার সৈয়দপুরের কল্যান ট্রাষ্টের নামে লন্ডাবাজার অবৈধ রেল মার্কেটের কোটি কোটি টাকা লুটপাঠ সৈয়দপুর রেল কারখানার জায়গায় অবৈধভাবে স্থাপিত সরকারী শিশু কল্যাণ ট্রাষ্ট স্কুল দুর্নীতিবাজ রেল কর্মকর্তার যোগসাজসে ভূমিদস্যুরা হাতিয়ে নিয়েছে রেলের কোটি টাকার সম্পদ সৈয়দপুর পৌর আ’লীগের ইফতার মাহফিলে দাওয়াত পাননি ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোকছেদুল মোমিন সৈয়দপুরে আসামীদের সাথে নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করলেন মোকছেদুল মোমিন সৈয়দপুর পৌরসভা কর্তৃক সরকারী সম্পত্তি আত্মসাতের অপরাধে রেল কর্তৃপক্ষের মামলা সৈয়দপুর বিমানবন্দর রোডে ৫৪৪নং রেল কোয়ার্টার ভেঙ্গে কোটি টাকার মার্কেট নির্মাণ, নির্বিকার রেল প্রশাসন

পীরগাছায় মাদক ব্যবসায়ী ছেলের নির্যাতনে ৫ মাস ধরে বাড়ি ছাড়া অসহায় মা-বাবা!

দাবানল সংবাদদাতা,পীরগাছা (রংপুর) 
  • সময় বৃহস্পতিবার, ২৪ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ৫৬০ বার পঠিত

রংপুরের পীরগাছায় মাদক ব্যবসায়ী ছেলে নির্যাতনে ৫ মাস ধরে বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন অবসরপ্রাপ্ত বিজিবি সদস্য কাজী আলহাজ¦ আব্দুস সাত্তার ও তার স্ত্রী রোকেয়া বেগম। গত ২৪ জুলাই থেকে অসহায় স্বামী-স্ত্রী নিজ বাড়িতে ঢুকতে পারছেন না। মাদক ব্যবসায়ী ছেলে মামুনুর ইসলাম শান্ত’র বিরুদ্ধে পীরগাছা থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে একটি এবং আদালতে পিতার দায়ের করা একটি সি আর মামলায় ওয়ারেন্ট থাকলেও পুলিশ তাকে গ্রেফতার করতে পারছে না।

 

ফলে নির্যাতিত অসহায় বাবা-মা প্রতিকার চেয়ে পীরগাছা প্রেসক্লাবে এসে কান্নায় ভেঙে পড়েন। বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হলে আলোচনা-সমালোচনার ঝড় ওঠে গোটা পীরগাছা জুড়ে।

জানা গেছে, উপজেলার মকরমপুর গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত বিজিবি সদস্য কাজী আলহাজ¦ আব্দুস সাত্তার এর ২ ছেলে ৬ মেয়ের মধ্যে বড় ছেলে প্রবাসী, ৬ মেয়ের বিয়ে হয়ে গেছে। ছোট একমাত্র ছেলে মামুনুর ইসলাম শান্ত নিয়ে চলছিল তার সংসার।

গত দুই বছর থেকে সে অসামাজিক কার্যকালাপে লিপ্ত হয়ে পড়ে। প্রথম স্ত্রীর অনুমতি ছাড়া একের পর এক বিয়ে ও মাদক ব্যবসায় জড়িয়ে পড়েন শান্ত। এ নিয়ে বাবা কাজী আব্দুস সাত্তার ও মা রোকেয়া বেগম প্রতিবাদ করলেই শুরু হয় শারিরীক ও মানষিক নির্যাতন। বাবা-মাকে নির্যাতন করে বাড়িতে গড়ে তোলেন মাদকের আড্ডাখানা।

 

গত ১৬ মে বৃদ্ধ বাবা-মাকে হাত-পা বেঁধে বদ্ধ ঘরে আগুন লাগিয়ে পুড়ে ফেলার চেষ্টা করলে এলাকাবাসীর নিকট খবর পেয়ে গভীর রাতে পুলিশ তাদের উদ্ধার করেন। কিছুদিন পর গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ তাকে ৪৭ পিচ ইয়াবা ট্যাবলেটসহ গ্রেফতার করে জেল হাজতে পাঠায়। যার মামলা নং-জি.আর ১০৫/২০। ওই মামলায় জামিনে ছাড়া পেয়ে আবারো বেপরোয়া হয়ে ওঠেন মামুনুর ইসলাম শান্ত।

 

বাবা-মার উপর শুরু করেন অমানষিক অত্যাচার। গত ২৪ জুলাই বৃদ্ধ বাবা-মাকে কিলঘুষি মেরে ধারালো অস্ত্র দিয়ে হত্যার চেষ্টা করলে কৌশলে পালিয়ে যান তারা। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট অভিযোগ দিলেও কোন কাজ না হওয়ায় আদালতে ছেলে বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন। যার নং-সি.আর-১৬৮/২০।

 

পরে আদালত মাদক ও বাবা’র দায়ের করা মামলায় মামুনুর ইসলাম শান্তর বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি করলে পুলিশ তাকে এখনো গ্রেফতার করতে পারেনি। এরপর দীর্ঘ ৫ মাস ধরে মাদক ব্যবসায়ী ছেলের ভয়ে বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন অসহায় বাবা-মা। তারা নিজ বাড়িতে ফিরতে পারছেন না। ছেলে বিচার দাবি করে ঘুরছেন অন্যের দ্বারে দ্বারে। গত মঙ্গলবার পীরগাছা প্রেসক্লাবে এসে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন অসহায় বাবা আব্দুস সাত্তার। প্রতিকার চান সাংবাদিকদের কাছে। সেই কান্নার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে পড়লে আলোচনা-সমালোচনার ঝড় ওঠে গোটা পীরগাছাসহ সারা দেশে।

মকরমপুর গ্রামের কয়েকজন বাসিন্দা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, শান্ত সারা দিন এলাকাতেই থাকে। সে এখনো মাদক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। শান্ত’র মা রোকেয়া বেগম বলেন, এমন ছেলে পেটে ধরেছিলাম যে, তার হাতে মারপিট খেয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছি। সে ছেলে নামের কলংক। বাবা কাজী আব্দুস সাত্তার কান্না জড়িত কন্ঠে বলেন, এই বৃদ্ধ বয়সে আমরা অন্যের বাড়ি বাড়ি ঘুরে বেড়াচ্ছি। ছেলে ভয়ভীতি দেখাচ্ছে মেরে ফেলার। বাড়ির জমি, গাছপালা, গরু বিক্রি করে সে মাদক ব্যবসা করছে। আমরা তার বিচার চাই!
এ বিষয়ে পীরগাছা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজিজুল ইসলাম বলেন, তাকে গ্রেফতারে জোর চেষ্টা চলছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ধরনের আরও সংবাদ
 

দৈনিক দাবানল © সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২০

themesba-lates1749691102