মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২, ০৭:৩৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম
আজকের পত্রিকা -০৪-০৬-২০২২ সৈয়দপুরে মাদক ব্যবসায়ীদের টার্গেট এখন ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ কমিটি, উদ্দেশ্য পদ পদবী বাগিয়ে নির্বিঘ্নে মাদক ব্যবসা  সৈয়দপুর বিমানবন্দরে ভিআইপি লাউঞ্জে নিরাপত্তা কর্মীর উপর যুবলীগ নেতার ক্ষমতার অপব্যবহার সৈয়দপুরের কল্যান ট্রাষ্টের নামে লন্ডাবাজার অবৈধ রেল মার্কেটের কোটি কোটি টাকা লুটপাঠ সৈয়দপুর রেল কারখানার জায়গায় অবৈধভাবে স্থাপিত সরকারী শিশু কল্যাণ ট্রাষ্ট স্কুল দুর্নীতিবাজ রেল কর্মকর্তার যোগসাজসে ভূমিদস্যুরা হাতিয়ে নিয়েছে রেলের কোটি টাকার সম্পদ সৈয়দপুর পৌর আ’লীগের ইফতার মাহফিলে দাওয়াত পাননি ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোকছেদুল মোমিন সৈয়দপুরে আসামীদের সাথে নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করলেন মোকছেদুল মোমিন সৈয়দপুর পৌরসভা কর্তৃক সরকারী সম্পত্তি আত্মসাতের অপরাধে রেল কর্তৃপক্ষের মামলা সৈয়দপুর বিমানবন্দর রোডে ৫৪৪নং রেল কোয়ার্টার ভেঙ্গে কোটি টাকার মার্কেট নির্মাণ, নির্বিকার রেল প্রশাসন

অপহরণের পর ৩০ হাজার টাকা মুক্তিপন না পেয়ে গলা টিপে হত্যা করা হয় রাব্বিকে

দাবানল প্রতিবেদক, মিঠাপুকুর (রংপুর)
  • সময় বুধবার, ২৫ নভেম্বর, ২০২০
  • ৪৫৬ বার পঠিত

রংপুরের মিঠাপুকুরে চাঞ্চল্যকর সাত বছর বয়সী শিশু গোলাম রব্বানী (রাব্বি) হত্যা মামলার মূল পরিকল্পনাকারীসহ দু’জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। অপহরণের পর ৩০ হাজার টাকা মুক্তিপন না পেয়ে রাব্বিকে হত্যা করার কথা জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছে তারা।

 

গ্রেফতারকৃতরা একই গ্রামের অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থী আল আমিন হোসেন ও মাদক ব্যবসায়ী মহিদুল ইসলাম ওরফে মুসফিকুর। তদের কাছ থেকে হত্যায় ব্যবহৃত একটি মোবাইলফোন, নয়টি সিম ও একটি প্লাস্টিকের বস্তা উদ্ধার করে পুলিশ। সোমবার রাতে গোপালপুর থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে মঙ্গলবার সন্ধায় গ্রেফতারের বিষয়টি সাংবাদিকদের জানান রংপুর জেলার সিনিয়র এএসপি (ডি-সার্কেল) কামরুজ্জামান।

এএসপি কামরুজ্জামান জানান, গত শুক্রবার সকাল ১০টার দিকে রাব্বি বাড়ির পাশের মাঠে খেলতে গিয়ে নিখোঁজ হয়। বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুঁজি করে না পেয়ে পরদিন শনিবার মিঠাপুকুর থানায় নিখোঁজ রাব্বির মা শ্যমলী বেগম একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। ওইদিন সন্ধ্যায় রাব্বির বাবা রফিকুল ইসলামের মোবাইলে কল দিয়ে ৩০ হাজার টাকা মুক্তিপণ দাবি করে অপহরণকারীরা। রাব্বির পরিবার টাকা জোগাড় করছিল, কিন্তু এরই মধ্যে গত সোমবার সকালে এক প্রতিবেশী বাড়ির পাশের ধান ক্ষেতে রাব্বির লাশ দেখতে পান। পরে রাব্বির মা বাদী হয়ে মিঠাপুকুর থানায় একটি হত্যা মামলা করেন।

তিনি আরো জানান, গোপালপুর ইউনিয়নের সুলুঙ্গা এলাকায় অভিযান চালিয়ে রাব্বি হত্যায় জড়িত একই গ্রামের অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থী আল আমিন হোসেন ও মহিদুল ইসলাম ওরফে মুসফিকুরকে গ্রেফতার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা হত্যার ঘটনায় জড়িত বলে স্বীকার করেছে। গ্রেফতার হওয়া মহিদুল ও আল আমিন প্রতিবেশী সম্পর্কে চাচা-ভাতিজা। জিজ্ঞাসাবাদে তারা আরো জানায়, আল আমিন ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল) ম্যাচে টাকা বাজি ধরে প্রায় ২০ হাজার টাকা ঋণ হয়েছে। পাওনাদাররা বারবার টাকা চাওয়ার কারণে সে মহিদুলের কাছে টাকা ধার চায়। মহিদুল তার কাছে টাকা নেই জানিয়ে রাব্বিকে অপহরণের পরামর্শ দেয়। রাব্বির বাবা রফিকুলের অনেক টাকা আছে। তাই তার ছেলেকে অপহরণ করতে পারলে বেশকিছু টাকা আদায় করা যাবে। মহিদুলের পরামর্শ অনুযায়ী আল আমিন রাব্বিকে চকলেট দেওয়ার কথা বলে শুক্রবার সকাল ১১টার দিকে তার বাসায় নিয়ে যায়। বাসায় নিয়ে কৌশলে চকলেটের সঙ্গে ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে দেয়।

 

চকলেট খাওয়ার ১৫ মিনিটের মধ্যে রাব্বি অচেতন হয়ে পড়ে। এরপর মহিদুলের পরামর্শে শুক্রবার সন্ধ্যায় রাব্বিকে বস্তায় ভরে বাড়ির পাশে খড়ের গাদায় লুকিয়ে রাখে। রাত ১১টার দিকে রাব্বি জেগে উঠলে তাদের চিনতে পারে এবং চিৎকার করার চেষ্টা করে। তখন তারা দুজন মিলে রাব্বিকে হত্যার পরিকল্পনা করে। পরে রাব্বিকে বস্তায় ভরে পাশের ধানের ক্ষেতে নিয়ে যায় এবং গলা টিপে হত্যা করে লাশ ধান ক্ষেতে ফেলে দেয়। রাব্বিকে হত্যার পরেও তারা মোবাইলে মুক্তিপণের দাবিতে চাপ দিতে থাকে। মোবাইলের সূত্র ধরেই সোমবার রাতে তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ধরনের আরও সংবাদ
 

দৈনিক দাবানল © সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২০

themesba-lates1749691102